দেশ করোনাভাইরাসের ঝুঁকিতে বললেন ওবায়দুল কাদের

0
29

দেশ করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) ঝুঁকিতে রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নিঃসন্দেহে এটা বলা চলে, আমরা ঝুঁকিতে আছি। কিন্তু আতঙ্কিত হওয়ার মতো কিছু এখনও আমাদের দেশে হয়নি।শুক্রবার (২০ মার্চ) আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের সপ্তম মৃত্যুবার্ষিকীতে বনানীতে তার কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পর সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, করোনা ভাইরাসে আমাদের এখানে এ পর্যন্ত ১৮ জন শনাক্ত হয়েছে, আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে। তারপরও ঝুঁকি আছে। এটা আজ পেনডেমিক ভাইরাসে পরিণত হয়েছে। করোনাভাইরাস চীন থেকে ইউরোপ-আমেরিকায় পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়েছে। কাজেই ভাইরাসের ঝুঁকি থেকে আমরা মুক্ত থাকতে পারবো সেটা নিশ্চিত করে বলা যায় না।সেতুমন্ত্রী বলেন, দেশ করোনা ঝুঁকিতে থাকলেও আতঙ্কিত হওয়ার মতো পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি। করোনাভাইরাস সারাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। আমরা ঝুঁকি থেকে মুক্ত থাকতে পারবো তা নিশ্চিত করে বলা যায় না। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে করোনা মোকাবেলায় আমরা সম্পূর্ণ প্রস্তুত। সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। সম্মিলিত উদ্যোগে এই শত্রুকে আমরা পরাজিত করবো যোগ করেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নির্বাচন পেছানোর দাবি কিভাবে দেখছেন- জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলামরা কখন কী বলেন, তারা সবকিছুতেই রাজনীতি ইস্যু খুঁজে বেড়ান। নির্বাচনের বিষয়টি সম্পূর্ণভাবে নির্বাচন কমিশনের এখতিয়ার। এখানে সরকারের কিছু করার নেই। নির্বাচন কমিশন সরকার নিয়ন্ত্রণ করে না। তাদের সিদ্ধান্ত তারা নিজেরাই নেয়। নির্বাচন কমিশনের কাছে আবেদন জানিয়েছেন। নির্বাচন কমিশন তাদের আবেদন গ্রহণ করবে কিনা, সেটা নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত নেবে।

‘করোনাভাইরাসের মধ্যেও সরকার বিরোধী দলের ওপর নির্যাতন চালাচ্ছে’ মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এ বক্তব্য প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এখন বিরোধী দলের ওপরে নির্যাতন কিভাবে হচ্ছে আমার তো জানা নেই। এর কোনও উত্তর, তথ্য-প্রমাণও তো নেই। আপনারা সাংবাদিকরা কি বলতে পারবেন, কোথায় তাদের ওপর নির্যাতন হচ্ছে? তারা তথ্য-প্রমাণ নিয়ে আসুক, তারপরে দেখা যাবে। তারা অন্ধকারে ঢিল ছুড়বে, নির্যাতন হচ্ছে, অত্যাচার হচ্ছে। ঢালাও অভিযোগ আনবে। এটা তাদের পুরনো অভ্যাস।’